Family Day Quotes (New 2020)

Family Day Quotes (New 2020) :

'Family' is a solitary word, with a wide range of implications. Individuals have numerous methods of characterizing a family and what being a piece of a family intends to them. Families contrast as far as monetary, social, and numerous different aspects, however what each family shares for all intents and purpose is that the individuals who consider it a family are clarifying that those individuals are significant somehow or another to the individual calling them his family.

The word reference characterizes family in a few different ways. One definition is "a principal social gathering in the public arena ordinarily comprising of a couple of guardians and their youngsters." While this definition is a decent beginning stage, there are a few current family structures that are barred by this definition, for example, childless couples or different minor departure from the nuclear family. Another definition is "at least two individuals who share objectives and qualities, have long haul duties to each other and live ordinarily in a similar dwelling." This definition envelops by far most of present day nuclear families; for the motivations behind this article, the subsequent definition will be utilized.

Numerous individuals believe companions to be as close or significantly closer than expanded (or quick) family. Individuals who have lost close relatives may make a nuclear family of companions with comparative interests and objectives to become substitutions or upgrades to a lacking family structure. This sort of nuclear family, while non-traditionally, can be similarly as close, if not closer, than a conventional structure. Companions are picked by a person; now and again, these individuals might be more exceptional or significant than the family an individual was brought into the world with. Likewise, a few people who have strong families additionally have a broad system of companions who they consider to be a subsequent family or as options to their blood or lawful family members. 

Some features of a good family


Appreciation


This is demonstrating appreciation for the enormous and each seemingly insignificant detail done to urge each other to accomplish more. 

Tolerance


The capacity to the endure other conduct in order to empower harmony. Attributes of a glad family are having the tolerance to oversee ungainly circumstances without grumbling. 

Trust


Your responsibility to the family as expressed above in urged your accomplice to confide in you. Home is effortlessly broken when the sentiment of trust is no more. Particularly when you neglected to do the things you have vowed to do. Your failure to address up to specific difficulties ought to be appropriately expressed already.

Fixation


Making their concerns your need as you demonstrated arrangements. Demonstrating the eagerness to listen when they have a remark makes a sentiment of adoration and not being ignored. 

Discretion


You need to guarantee you support an upbeat home by rehearsing the restraint procedure. You need to have the option to settle your outrage in the midst of uneasiness so as to lecture harmony. 

Consolation


The amount you can push and rouse the other to be industrious in making the best decision. The sort of consolation penetrates the sentiments and premise of going on in great and intense occasions. 

Correspondence


Profound correspondence is underlined positive connection to keep the bond new. 

Keeping rules


Each family has expected some non-legitimate rundown of rules. These standards shouldn't be coercive in nature however are intended to be regarded.

Family Day Quotes :





Family Day Quotes
Family Day Quotes

      The most important thing in the world family and love.
                                     -John Wooden

Family Day Quotes
Family Day Quotes

      In family life, love is oil that eases friction, the cement that binds closer together, and the music that brings harmony.
                             -Friedrich Nietzsche


Family Day Quotes
Family Day Quotes

    Being a family means you are a part of something wonderful. It means you love be loved for the rest of your life.
                                  -Lisa Weed

Family Day Quotes
Family Day Quotes

      Other Things may change us, but we start and end with the family.
                                -Anthony Brandt

Family Day Quotes
Family Day Quotes

        To us, family means putting your arms around each other and bring there.
                                     -Barbara Bush

Family Day Quotes
Family Day Quotes

       Nothing is better than going home to family and eating good food and relaxing.
                       -Irina Shayk

Family Day Quotes
Family Day Quotes

      Being a part of family means smiling for photos.
                               -Harry Morgan

Family Day Quotes
Family Day Quotes

      The informality of family life is a blessed condition that allows us all to become our best while looking our worst.
                                 -Marge Kennedy


Family Day Quotes
Family Day Quotes

  Ohana means family and family means nobody gets behind and forgotten.
                          -Stitch


Family Day Quotes
Family Day Quotes

      Rejoice with your family in the beautiful land of life.
                            -Albert Einstein

Family Day Quotes
Family Day Quotes

      Family: A social unit where the father is concerned with parking space, the children with outer space, and the mother with closet space.
                          -Evan Esar

Family Day Quotes
Family Day Quotes

      This is my family. I found it all on my own. It's little, and broken, but still good. Yeah. Still good.
                                  - Stitch


Family Day Quotes
Family Day Quotes

      We may have our differences, but nothing's more important than family.
                     -Coco


Tags :


funny family quotes |
i love my family quotes |
inspirational quotes about family strength |
quotes about family problems |
missing family quotes |
family time quotes |
broken family quotes |
family bonding moments quotes |
family caption |



   -------------------------

Muktodhara Thursday, May 14, 2020
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary : রবিঠাকুরের জন্ম বার্ষিকী ( 2020)



Rabindranath Tagore Birthday Anniversary : রবিঠাকুরের জন্ম বার্ষিকী (2020)-



Rabindranath Tagore Birthday
Rabindranath Tagore Birthday

 Rabindra Tagore Birthday


      পঁচিশে বৈশাখ চলেছে
            জন্মদিনের ধারাকে বহন করে
                           মৃত্যুদিনের দিকে।
                                     সেই চলতি আসনের উপর বসে
                                                                        কোন্‌ কারিগর গাঁথছে
                                            ছোটো ছোটো জন্মমৃত্যুর সীমানায়
নানা রবীন্দ্রনাথের একখানা মালা।  
Rabindranath Tagore
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
রথে চড়ে চলেছে কাল;                                  
                    পদাতিক পথিক চলতে চলতে
                                            পাত্র তুলে ধরে,
                           পায় কিছু পানীয়; -
                পান সারা হলে
পিছিয়ে পড়ে অন্ধকারে;
                  চাকার তলায়
 ভাঙা পাত্র ধুলায় যায় গুঁড়িয়ে।        
                               তার পিছনে পিছনে
                                                 নতুন পাত্র নিয়ে যে আসে ছুটে,
                                      পায় নতুন রস,
                                                 একই তার নাম,
                                  কিন্তু সে বুঝি আর- একজন।
                                      একদিন ছিলেম বালক
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
                      

                    
                                                                                       কয়েকটি জন্মদিনের ছাঁদের মধ্যে
                                                                                       সেই যে- লোকটার মূর্তি হয়েছিল গড়া
                                                                                        তোমরা তাকে কেউ জান না।
                                                                                           সে সত্য ছিল যাদের জানার মধ্যে
                                                                                                    কেউ নেই তারা।
সেই বালক না আছে আপন স্বরূপে
না আছে কারো স্মৃতিতে।
সে গেছে চলে তার ছোটো সংসারটাকে নিয়ে;
তার সেদিনকার কান্না- হাসির
                                               প্রতিধ্বনি আসে না কোনো হাওয়ায়।
                                                                                তার ভাঙা খেলনার টুকরোগুলোও
                                                                                      দেখিনে ধুলোর 'পরে।
                                                                                সেদিন জীবনের ছোটো গবাক্ষের কাছে
                                                                                  সে বসে থাকত বাইরের দিকে চেয়ে।
তার বিশ্ব ছিল  
সেইটুকু ফাঁকের বেষ্টনীর মধ্যে।
তার অবোধ চোখ- মেলে চাওয়া
ঠেকে যেত বাগানের পাঁচিলটাতে
সারি সারি নারকেল গাছে।
                                                সন্ধ্যেবেলাটা রূপকথার রসে নিবিড়;
বিশ্বাস অবিশ্বাসের মাঝখানে
বেড়া ছিল না উঁচু,
মনটা এদিক থেকে ওদিকে
ডিঙিয়ে যেত অনায়াসেই।
প্রদোষের আলো- আঁধারে
বস্তুর সঙ্গে ছায়াগুলো ছিল জড়িয়ে,
                                                        দুইই ছিল একগোত্রের।
                                                                                              সে- কয়দিনের জন্মদিন
                                                                                                                একটা দ্বীপ,
                                                                                                 কিছুকাল ছিল আলোতে,
                                                                                          কাল- সমুদ্রের তলায় গেছে ডুবে।
                                                                                              ভাঁটার সময় কখনো কখনো
                                                                                               দেখা যায় তার পাহাড়ের চূড়া,
                                                   দেখা যায় প্রবালের রক্তিম তটরেখা।

পঁচিশে বৈশাখ তার পরে দেখা দিল
আর- এক কালান্তরে,
ফাল্গুনের প্রত্যুষে
রঙিন আভার অস্পষ্টতায়।
তরুণ যৌবনের বাউল
সুর বেঁধে নিল আপন একতারাতে,
ডেকে বেড়াল
নিরুদ্দেশ মনের মানুষকে
                                                 অনির্দেশ্য বেদনার খ্যাপা সুরে।
                                                                                          সেই শুনে কোনো- কোনোদিন বা
                                                                                               বৈকুণ্ঠে লক্ষ্মীর আসন টলেছিল,
                                                                                                  তিনি পাঠিয়ে দিয়েছেন
                                                                                                তাঁর কোনো কোনো দূতীকে
                                                                                           পলাশবনের রঙমাতাল ছায়াপথে
                                                           কাজ- ভোলানো সকাল- বিকালে।
তখন কানে কানে মৃদু গলায় তাদের কথা শুনেছি,
                          কিছু বুঝেছি, কিছু বুঝিনি।
                                           দেখেছি কালো চোখের পক্ষ্ণরেখায়
                                                 জলের আভাস;
                                                              দেখেছি কম্পিত অধরে নিমীলিত বাণীর
                                                                               বেদনা;


শুনেছি ক্বণিত কঙ্কণে
     চঞ্চল আগ্রহের চকিত ঝংকার।
                  তারা রেখে গেছে আমার অজানিতে
                                                     পঁচিশে বৈশাখের
                                 প্রথম ঘুমভাঙা প্রভাতে
        নতুন ফোটা বেলফুলের মালা;
                            ভোরের স্বপ্ন
                                  তারি গন্ধে ছিল বিহ্বল।
                                       সেদিনকার জন্মদিনের কিশোর জগৎ
                              ছিল রূপকথার পাড়ার গায়ে- গায়েই,
                        জানা না- জানার সংশয়ে।

সেখানে রাজকন্যা আপন এলোচুলের আবরণে
                                         কখনো বা ছিল ঘুমিয়ে,
কখনো বা জেগেছিল চমকে উঠে'
                      সোনার কাঠির পরশ লেগে।
                দিন গেল।
                                                                           সেই বসন্তীরঙের পঁচিশে বৈশাখের
                                                                                                    রঙ- করা প্রাচীরগুলো
                                                                                              পড়ল ভেঙে।
                                                                        যে পথে বকুলবনের পাতার দোলনে


ছায়ায় লাগত কাঁপন,
                 হাওয়ায় জাগত মর্মর,
                                বিরহী কোকিলের
                                          কুহুরবের মিনতিতে
                             আতুর হত মধ্যাহ্ন,
মৌমাছির ডানায় লাগত গুঞ্জন
                            ফুলগন্ধের অদৃশ্য ইশারা বেয়ে,
                                                       সেই তৃণ- বিছানো বীথিকা
                          পৌঁছল এসে পাথরে- বাঁধানো রাজপথে।

     সেদিনকার কিশোরক
                      সুর সেধেছিল যে- একতারায়
                                           একে একে তাতে চড়িয়ে দিল
                                                                          তারের পর নতুন তার।
                                                     সেদিন পঁচিশে বৈশাখ
                                     আমাকে আনল ডেকে
                             বন্ধুর পথ দিয়ে
                                              তরঙ্গমন্দ্রিত জনসমুদ্রতীরে।
বেলা- অবেলায়
ধ্বনিতে ধ্বনিতে গেঁথে
জাল ফেলেছি মাঝদরিয়ায়;
কোনো মন দিয়েছে ধরা,
ছিন্ন জালের ভিতর থেকে
কেউ বা গেছে পালিয়ে।
কখনো দিন এসেছে ম্লান হয়ে,
সাধনায় এসেছে নৈরাশ্য,
গ্লানিভারে নত হয়েছে মন।
এমন সময়ে অবসাদের অপরাহ্নে
অপ্রত্যাশিত পথে এসেছে
অমরাবতীর মর্ত্যপ্রতিমা;
সেবাকে তারা সুন্দর করে,
তপঃক্লান্তের জন্যে তারা
আনে সুধার পাত্র;
ভয়কে তারা অপমানিত করে
উল্লোল হাস্যের কলোচ্ছ্বাসে;
তারা জাগিয়ে তোলে দুঃসাহসের শিখা
ভস্মে- ঢাকা অঙ্গারের থেকে;
তারা আকাশবাণীকে ডেকে আনে
প্রকাশের তপস্যায়।
তারা আমার নিবে- আসা দীপে
জ্বালিয়ে গেছে শিখা,
শিথিল- হওয়া তারে
বেঁধে দিয়েছে সুর,
পঁচিশে বৈশাখকে
বরণমাল্য পরিয়েছে
আপন হাতে গেঁথে।
তাদের পরশমণির ছোঁওয়া
আজো আছে
আমার গানে আমার বাণীতে।
সেদিন জীবনের রণক্ষেত্রে
দিকে দিকে জেগে উঠল সংগ্রামের সংঘাত
গুরু গুরু মেঘমন্দ্রে।
একতারা ফেলে দিয়ে
কখনো বা নিতে হল ভেরী।
খর মধ্যাহ্নের তাপে
ছুটতে হল
জয়পরাজয়ের আবর্তনের মধ্যে।
পায়ে বিঁধেছে কাঁটা,
ক্ষত বক্ষে পড়েছে রক্তধারা।
নির্মম কঠোরতা মেরেছে ঢেউ
আমার নৌকার ডাইনে বাঁয়ে,
জীবনের পণ্য চেয়েছে ডুবিয়ে দিতে
নিন্দার তলায়, পঙ্কের মধ্যে।
বিদ্বেষে অনুরাগে
ঈর্ষায় মৈত্রীতে,
সংগীতে পরুষ কোলাহলে
আলোড়িত তপ্ত বাষ্পনিঃশ্বাসের মধ্য দিয়ে
আমার জগৎ গিয়েছে তার কক্ষপথে।
এই দুর্গমে, এই বিরোধ- সংক্ষোভের মধ্যে
পঁচিশে বৈশাখের প্রৌঢ় প্রহরে
তোমরা এসেছ আমার কাছে।
জেনেছ কি,
আমার প্রকাশে
অনেক আছে অসমাপ্ত
অনেক ছিন্ন বিচ্ছিন্ন
অনেক উপেক্ষিত?
অন্তরে বাহিরে
সেই ভালো মন্দ,
স্পষ্ট অস্পষ্ট,
খ্যাত অখ্যাত,
ব্যর্থ চরিতার্থের জটিল সম্মিশ্রণের মধ্য থেকে
যে আমার মূর্তি
তোমাদের শ্রদ্ধায়, তোমাদের ভালোবাসায়,
তোমাদের ক্ষমায়
আজ প্রতিফলিত,
আজ যার সামনে এনেছ তোমাদের মালা,
তাকেই আমার পঁচিশে বৈশাখের
শেষবেলাকার পরিচয় বলে
নিলেম স্বীকার করে,
আর রেখে গেলেম তোমাদের জন্যে
আমার আশীর্বাদ।
যাবার সময় এই মানসী মূর্তি
রইল তোমাদের চিত্তে,
কালের হাতে রইল বলে
করব না অহংকার।
তার পরে দাও আমাকে ছুটি
জীবনের কালো- সাদা সূত্রে গাঁথা
সকল পরিচয়ের অন্তরালে;
নির্জন নামহীন নিভৃতে;
নানা সুরের নানা তারের যন্ত্রে
সুর মিলিয়ে নিতে দাও
এক চরম সংগীতের গভীরতায়।



      


Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
      হে নূতন, 
দেখা দিক আর- বার জন্মের প্রথম শুভক্ষণ।
তোমার প্রকাশ হোক কুহেলিকা করি উদঘাটন
সূর্যের মতন।
                       রিক্ততার বক্ষ ভেদি আপনারে করো উন্মোচন।
                                ব্যক্ত হোক জীবনের জয়,
                                 ব্যক্ত হোক তোমামাঝে অসীমের চিরবিস্ময়।
উদয়দিগন্তে শঙ্খ বাজে, মোর চিত্তমাঝে
চিরনূতনেরে দিল ডাক
পঁচিশে বৈশাখ।

Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary

     

রাত্রি হল ভোর।
আজি মোর
জন্মের স্মরণপূর্ণ বাণী,
প্রভাতের রৌদ্রে- লেখা লিপিখানি
হাতে করে আনি
দ্বারে আসি দিল ডাক
পঁচিশে বৈশাখ।
দিগন্তে আরক্ত রবি;
অরণ্যের ম্লান ছায়া বাজে যেন বিষণ্ন ভৈরবী।
শাল- তাল- শিরীষের মিলিত মর্মরে
বনান্তের ধ্যান ভঙ্গ করে।
রক্তপথ শুষ্ক মাঠে,
যেন তিলকের রেখা সন্ন্যাসীর উদার ললাটে।
এই দিন বৎসরে বৎসরে
নানা বেশে ফিরে আসে ধরণীর 'পরে-
আতাম্র আম্রের বনে ক্ষণে ক্ষণে সাড়া দিয়ে,
তরুণ তালের গুচ্ছে নাড়া দিয়ে,
মধ্যদিনে অকস্মাৎ শুষ্কপত্রে তাড়া দিয়ে,
কখনো বা আপনারে ছাড়া দিয়ে
কালবৈশাখীর মত্ত মেঘে
বন্ধহীন বেগে।
আর সে একান্তে আসে
মোর পাশে
পীত উত্তরীয়তলে লয়ে মোর প্রাণদেবতার
স্বহস্তে সজ্জিত উপহার-
নীলকান্ত আকাশের থালা,
তারি 'পরে ভুবনের উচ্ছলিত সুধার পিয়ালা।
এই দিন এল আজ প্রাতে
যে অনন্ত সমুদ্রের শঙ্খ নিয়ে হাতে,
তাহার নির্ঘোষ বাজে
ঘন ঘন মোর বক্ষোমাঝে।
জন্ম- মরণের
দিগ্বলয়- চক্ররেখা জীবনেরে দিয়েছিল ঘের,
সে আজি মিলাল।
শুভ্র আলো
কালের বাঁশরি হতে উচ্ছ্বসি যেন রে
শূন্য দিল ভরে।
আলোকের অসীম সংগীতে
চিত্ত মোর ঝংকারিছে সুরে সুরে রণিত তন্ত্রীতে।
উদয়- দিক্‌প্রান্ত- তলে নেমে এসে
শান্ত হেসে
এই দিন বলে আজি মোর কানে,
"অম্লান নূতন হয়ে অসংখ্যের মাঝখানে
একদিন তুমি এসেছিলে
এ নিখিলে
নবমল্লিকার গন্ধে,
সপ্তপর্ণ- পল্লবের পবনহিল্লোল- দোল- ছন্দে,
শ্যামলের বুকে,
নির্নিমেষ নীলিমার নয়নসম্মুখে।
সেই- যে নূতন তুমি,
তোমারে ললাট চুমি
এসেছি জাগাতে
বৈশাখের উদ্দীপ্ত প্রভাতে।
"হে নূতন,
দেখা দিক্‌ আরবার জন্মের প্রথম শুভক্ষণ।
আচ্ছন্ন করেছে তারে আজি
শীর্ণ নিমেষের যত ধূলিকীর্ণ জীর্ণ পত্ররাজি।
মনে রেখো, হে নবীন,
তোমার প্রথম জন্মদিন
ক্ষয়হীন-
যেমন প্রথম জন্ম নির্ঝরের প্রতি পলে পলে;
তরঙ্গে তরঙ্গে সিন্ধু যেমন উছলে
প্রতিক্ষণে
প্রথম জীবনে।
হে নূতন,
হোক তব জাগরণ
ভস্ম হতে দীপ্ত হুতাশন।
"হে নূতন,
তোমার প্রকাশ হোক কুজ্ঝটিকা করি উদ্‌ঘাটন
সূর্যের মতন।
বসন্তের জয়ধ্বজা ধরি
শূন্য শাখে কিশলয় মুহূর্তে অরণ্য দেয় ভরি-
সেই মতো, হে নূতন,
রিক্ততার বক্ষ ভেদি আপনারে করো উন্মোচন।
ব্যক্ত হোক জীবনের জয়,
ব্যক্ত হোক তোমা- মাঝে অনন্তের অক্লান্ত বিস্ময়।'
উদয়দিগন্তে ওই শুভ্র শঙ্খ বাজে।
মোর চিত্তমাঝে
চির- নূতনেরে দিল ডাক
পঁচিশে বৈশাখ।

Rabindranath Tagore Birthday Anniversary
Rabindranath Tagore Birthday Anniversary

     

With Death's passport in hand
it has emerged from its dive into the chasm of nothingness
to breathe a while on the outskirts of existence.
From the worn- out chain have dropped the beads of the past years
and with this newest birthday
begins the counting of the days of a new- born life.
The welcome offered today to me,
a passer- by,
who tries to con the signal of the morning of an unknown star
beckoning him towards an uncharted voyage,
is shared equally by his birthday
and the time of his death,
who mingle their lights like those of the morning star
and of the waning moon.
And I shall sing the same chant to both,
to death and to life.
Grant me. Mother Earth,
that my life's mirage born of burning thirst
may recede in the farthest horizon
and my unclean beggar's bowl empty into the dust
its accumulated defilements;
and as I start my crossing to the unrevealed shore
let me never look back with longing
on the last leavings of the feast of life.
Now when in this sleep- laden dusk of the day's end
the meaning is lost of the keen- bladed hunger
with which you had goaded me to drag life's chariot
you begin to withdraw your gifts from me one by one.
Slight has grown your need of me
and slight have you made my use
and set on my forehead the stamp of the discarded.
I feel it all and yet I know,
all this contumely of yours
will not reduce my worth to nought.
Cripple me, if you will,
shut out all light from my eyes,
shroud me in the shadow of infirmity,
yet in the dilapidated temple of my being
the ancient god will remain enthroned.
Work your havoc and pile up the wreck,
yet in the midst of this ruin
the luminous spot of inward joy
will burn bright as ever.
For it was fed day after day on the heavenly wine
which the gods pour on earth through every sight and sound.
I had loved them all
and sung of that love.
That love has lifted me above your bounds,
the love that shall abide, even though its words grow feeble,
defaced by constant use.
On this love of mine have traced their autographs
the pollen of the mango- blossom,
and the dew- cooled fragrance of the sephalika
the twitterings of the doels in early dawn
and the rapturous touch of the beloved.
When I take my leave of you, 0 Earth,
take back from me, carefully reckoning,
all that you had vouchsafed to me,
the outfit and provision for a life's sojourn.
Yet never think that I hold your gifts but slight.
Ever grateful I am to this clay- cast mould
through which I have had my introduction to the Formless.
Whenever I have approached your doors
with the mind free from all coveting,
I have been made welcome to your heart.
I know your gifts are not for the greedy,
that you withhold the nectar hidden in your earthen pot
from the ravenous lips of those that hunger obscenely.
You are waiting, O Earth, with your immortal gifts,
to welcome the wayfarer who treads the arduous path of detachment.
The gluttons who lust for flesh,
the traffickers in festering carrion,
have banded today in their orgies of violence, day and night.
Yet mockery tempts my smile, as of old,
at the pompous folly of the learned,
at the tyranny of the beggarly rich,
at the hideous make- up of the showy,
at the blasphemy that lampoons the divine in Man.
Enough of this. The bell tolls the last hour at your porch,
and my heart responds to the creaking of the opening gates of farewell.
In this deepening gloom of the twilight,
I will gather what flickering flames remain to light my fading
consciousness,
to offer my last worship to you, 0 Earth,
under the gaze of the Seven Rishis.
And the incense of my last silent song will float round you.
Behind me will remain the nagkeshar plant
that has yet to flower,
the anguished heart of this shore
yearning in vain for a ferry across,
and love's self- reproach at its tired memory
vanishing behind the screen of daily task.

     ------------------- 

Tags :

rabindranath tagore biography |

rabindranath tagore family |

rabindranath tagore books |

about rabindranath tagore |

rabindranath tagore essay |

rabindranath tagore poems

short biography of rabindranath tagore |

rabindranath tagore history |

rabindranath tagore |

rabindranath tagore childhood |

Muktodhara Friday, May 8, 2020